বিশ্বাস করার এস এম এস, আত্মবিশ্বাস SMS

বিশ্বাস করার এস এম এস, আত্মবিশ্বাস SMS

বিশ্বাস করার এস এম এস, আত্মবিশ্বাস SMS

১) আমি তো এটা চাইলেই করতে পারব -এটা ভেবে কখনও আনন্দ পেও না–ওতে কাজটাই কখনও করা হবে না
মনের আত্মবিশ্বাস নিয়ে কাজ শুরু করে দাও

২) আত্মবিশ্বাস এমনি এমনি আসে না
অভিজ্ঞতা যত বৃদ্ধি পাবে,
আত্মবিশ্বাসও ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পাবে

৩) জীবনের সবচেয়ে বড় জয় হলো এমনকিছু করে দেখানো; যা সবাই ভেবেছিল তুমি কখনোই করতে পারবেন না

৪) তোমার যা নেই তার পেছনে ছুটো।যা আছে তা নষ্ট করো না।মনে রেখো আজকে তোমার যা আছে।গতকাল তুমি সেটার পেছনে ছুটে ছিলে — এপিকিউরাস

৫) নিজেকে কখনও ছোট করে দেখো না, তাহলে তোমার নিজের আত্মাই মরে যাবে। আত্মা মরে গেলে মানুষ স্বপ্ন দেখতে ভুলে যায়। আর স্বপ্ন ছাড়া মানুষ কখনও বেঁচে থাকতে পারে না

৬) ভুল ভ্রান্তি দিয়েই মানুষের জীবন।
সেই ভুলকে প্রাধান্য দিয়ে,
বাকি জীবনে অশান্তি ডেকে আনবার কোন মানে হয় না

৭) আমি করি কারণ আমি পারি
Ami পারি কারণ আমি পারতে চাই
আমি পারতে চাই কারণ তুমি বলেছিলে
“Ami এটা করতে পারবো না”

৮) অজ্ঞ ব্যাক্তি নিজের ভাল নিজেই বোঝে না, তাছাড়া অন্যের উপদেশ তাচ্ছিল্যের সাথে প্রত্যাখান করে।
– হযরত আলী (রা)

৯) রাস্তায় ঘেউ ঘেউ করা সব কুকুরকে তুমি
যদি ঢিল মারতে যাও তাহলে তুমি
তোমার গন্তব্যেই পৌঁছাতে পারবে না

১০) মাথা ছাড়া যেমন মানব দেহের
কথা কল্পনা করা যায় না,
তেমনি সবর বা ধৈর্য
ছাড়া কোনো কিছুই সঠিক হয় না।

বিশ্বাস করার উক্তি

১১) যে তোমাকে কষ্ট দেয় তার জন্য কখনো চোখের জল ফেলনা…
বরং,,
তাকে ধন্যবাদ দাও!
তার চেয়ে ভাল কাওকে খোঁজার সুযোগ করে দেয়ার জন্য!

১২) সাফল্যের ৩টি শর্তঃ –
অন্যের থেকে বেশী জানুন!
Onnor থেকে বেশী কাজ করুন!
অন্যের থেকে কম আশা করুন!
~~ উইলিয়াম শেক্সপিয়ার।

১৩) অযোগ্য মানুষেরাই সসময় জোর করে সবার মাঝে গ্রহণযোগ্যতা পাওয়ার চেষ্টা করে।

১৪) অতি প্রত্যাশা সব সময় হতাশায় পরিনত হয়। কখনো অতি প্রত্যাশা করবেন না।প্রত্যাশা করার আগে নিজের যোগ্যতা সর্ম্পকে নিশ্চিত হোন। তার পর যোগ্যতা অনুযায়ী প্রত্যাশা করুন।

১৫) অতীতকে ছোট করে দেখা উচিত নয় আবার
অতীত কে অতিরিক্ত মুল্য দেয়াও ঠিক না

১৬) অনেক জিনিস অন্যের ভাগে পড়ে যা আমার ভাগে পড়ে না ,
তাই নিয়ে দুঃখ করে লাভ নেই ।
কেননা আমার ভাগে যা পড়েছে তা অন্যের ভাগে হয়তো পড়েনি।

১৭) অভিজ্ঞতা কখনো তৈরী করা যায় না.
অভিজ্ঞতা অর্জন করতে হয় বিভিন্ন কাজের মধ্যে দিয়ে

১৮) অভিমান হল হৃদয়ের অতি গোপন প্রকোষ্ঠের ব্যাপার। যে কেউ সেখানে হাত ছোঁয়াতে পারে না

১৯) অল্প বয়সে কাউকে পাওয়ার আশায়. নিজের জীবন নষ্ট কর না. তুমি নিজের মত করে . তোমার জীবন সাজাও. সময় বলে দেবে.. তুমি কার হবে এবং কে হবে তোমার

২০) আজ তোমার প্রতি আমার আচরণের কারণ আমার প্রতি তোমার ব্যবহার…
তাই আমার আচরণ তোমার ভালো না লাগলে,
নিজেকে দোষ দাও.

২১) আত্মবিশ্বাস গভীর জঙ্গলে ছোট্ট টর্চের মত, এতে পুরোটা আলোকিত হয়না কিন্তু যথেষ্ট আলো দেয় যাতে নির্বিঘ্নে নিরাপদে পৌঁছানো যায়.আত্মবিশ্বাসের সাথে দিন শুরু করো

২২) আত্মবিশ্বাস থাকলে তুমি তোমার ক্ষমতার বাইরের অনেক কাজও খুব সহজে করে নিতে পারবে,
কিন্তু আত্মবিশ্বাস না থাকলে তোমার সাধ্যের মধ্যে থাকা কাজগুলোও তোমার কাছে অসম্ভব ঠেকবে

বিশ্বাস করার এস এম এস, আত্মবিশ্বাস SMS

২৩) আত্মবিশ্বাস সাধারণত সাফল্যের সাথে আসে…কিন্তু সাফল্য তাদেরকেই ধরা দেয় যারা আত্মবিশ্বাসী

২৪) আনন্দ অনেকটা একটা লেজের ডগার মতন.
যদি একটা বিড়াল নিজের লেজের ডগাটা ধরতে যায়,
তাহলে সে সারা জীবন ঘুরেই যাবে,
কিন্তু যদি সে নিজের মতন চলতে থাকে,
তাহলে লেজটাও তাকে অনুসরণ করবে
নিজের মতন করে জীবনটাকে বাঁচো.

২৫) আপনার প্রিয় মানুষটি কোন কারণে আপনার উপর রাগ করতে পারে। কেননা, এটা তাঁর অধিকার।
আর তাঁর রাগ ভাঙ্গানোটা আপনার দায়িত্ব।

২৬) আমাদের আত্মবিশ্বাস যতটা থাকে..ততটাই আমাদের ক্ষমতাও থাকে
তাই তোমার আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধি পেলে তোমার ক্ষমতাও বৃদ্ধি পাবে

২৭) আমাদের জীবনের প্রতিটি পরীক্ষা
হয় আমাদেরকে শক্ত করে নয় করে দেয় ভঙ্গুর.
আমাদের জীবনের প্রতিটি সমস্যা
হয় আমাদের তৈরী করে,না হয় চূর্ণ-বিচূর্ণ করে.
আমরা শিকার হব না শিকারী,সেই পছন্দটা নিতান্তই আমাদের.

২৮) আমার নামে কে কি বলছে সেটা আমাকে বলতে হবে না….
শুধু বলো তোমাকেই কেন বলল আমার নামে?

২৯) আমার ব্যক্তিত্ব আর আমার আচরণকে গুলিয়ে ফেলো না.
আমার ব্যাক্তিত্ব তোমায় বলে দেবে আমি কে,
আর আমার আচরণ তোমায় জানিয়ে দেবে তুমি কে

৩০) আমি আমার অতীত নিয়ে কখনো অনুতাপ করি না.
আমার শুধু খারাপ লাগে এটা ভেবে যে আমি ভুল কারো সাথে আমার জীবনের কিছু মূল্যবান সময় নষ্ট করেছিলাম.

৩১) আমি চাইনা আমার বোঝাগুলো হালকা হয়ে যাক,
শুধু চাই,আমার শরীরে যেন সেই বোঝাগুলো
বয়ে নিয়ে চলার মতন অপরিসীম শক্তি
চিরকাল থাকে.

৩২) আমি জানি আকাশ ছুঁতে পারব না, তাই বলে স্বপ্ন দেখতে তো দোষ নেই । আকাশ ছোঁয়ার ভয়ে যদি আকাশের দিকে তাকাতেই ভয় পাই, তাহলে তো স্বপ্ন দেখা ভুলে যেতে হবে

৩৩) আমি জানি আমি কে.
আমার পরিচয় আমার কাছে অপ্রকাশিত নয়,
তাই তোমার শংসাপত্রের প্রয়োজন আমার নেই

বিশ্বাস করার, আত্মবিশ্বাস SMS

৩৪) আমি ব্যার্থ হয়েছি কিন্তু ঘুরে দাড়িয়েছি। আমি দুঃখঁ পেয়েছি সামলে নিয়েছি।
Ami ভুল করেছি শিক্ষা নিয়েছি।
আমি অনেক প্রতিকূলতা সত্ত্বেও লড়াই করে বেঁচে আছি।
আমি নিখুঁত নই আমিও একজন মানুষ। আমার যা আছে তা নিয়েই আমি খুঁশি।

৩৫) Ami সেই সমস্ত লোকেদের কাছে কৃতজ্ঞ যারা আমার খারাপ সময়ে আমার সঙ্গ ছেড়ে দিয়েছে..কারণ তাদের বিশ্বাস ছিল যে আমি এই সমস্যার সময় থেকে একাই বেরিয়ে আসতে পারবো!

৩৬) আমি সম্মান করি আমার সব শত্রুদের,
তাদের কাছে থেকে আঘাত পেয়ে পেয়ে অনেক কিছু শিখেছি আমি.

৩৭) আমরা সবাই অসীম শক্তির অধিকারী
কিন্তু চোখে হাত রেখে তবু আমরা মাঝে মাঝে বলি
“চারিদিকটা কি অন্ধকার.

৩৮) আলো কিন্তু অন্ধকারেই বেশী উজ্জ্বলভাবে প্রকাশ পায়,
তাকে অন্ধকার কখনই দমিয়ে রাখতে পারে না.
তাই খারাপ সময় আসবে না জীবনে এমনটা ভাবাটা উচিত নয়.
কিন্তু মনে বিশ্বাস রাখো যে সেই সমস্ত বিপদ কাটিয়ে তুমি আবার আলোয় ফিরে আসতে পারবে.

৩৯) ঈশ্বর তাদেরকে সবকিছু দেন যারা তার উপর বিশ্বাস রাখে..
কিন্তু তোমাকে কিছু দেন নি কারণ ঈশ্বরের তোমার উপর বিশ্বাস আছে.

৪০) এই পৃথিবী কখনো খারাপ মানুষের
খারাপ কর্মকাণ্ডের জন্য ধংস
হবেনা. যারা খারাপ মানুষের এসব
কর্ম-কাণ্ড দেখেও কিছু
করেনা তাদের জন্যই ধংস হবে !
—আইনস্টাইন

৪১) একজন সফল ব্যক্তি সেই যে গড়ে তুলতে পারে শক্ত ভিত সেইসব ইট-পাথর দিয়ে যা কিনা তার দিকেই লোকে ছুঁড়েছিল! আত্মবিশ্বাসের সাথে দিনটা শুরু করো.

৪২) একটা কথা বলে রাখি। নিজের সুখের দায়িত্ব অন্য কারো হাতে দিওনা। কারন… সে হারিয়ে গেলে সুখ টা ও হারিয়ে যাবে। মাঝখান থেকে করবে তুমি কষ্ট

৪৩) একটা জাহাজ যতক্ষন বন্দরে আছে,
ততক্ষন সে নিরাপদ.
কিন্তু জাহাজটি কি তার জন্যেই তৈরী?

৪৪) একটা দরজা বন্ধ হয়ে গেলে আর একটা দরজা খুলে যায়.
কিন্তু কখনো কখনো আমরা বন্ধ হয়ে যাওয়া দরজাটার দিকে তাকিয়ে এত লম্বা সময় ধরে বিলাপ করি,যে খোলা দরজাটা আমাদের চোখেই পড়ে না.

বিশ্বাস করার SMS

৪৫) একটা পাখি কখনো উঁচু ডালে বসতে ভয় পায় না.
কারণ সে জানে যে যতই বিপদ হোক,সে পড়ে যাবে না.কারণ তার কাছে ওড়ার আত্মবিশ্বাস আছে.
এর থেকে শিক্ষা নাও যে জীবনে কখনো ঝুঁকি নিতে ভয় পেও না.নিজের উপর বিশ্বাস রাখো.
তাহলেই সাফল্য তোমার কথা শুনবে

৪৬) একটা সঠিক সিদ্ধান্ত তোমার আত্মবিশ্বাসকে দ্বিগুন করে দেয়,
আর একটা ভুল সিদ্ধান্ত দ্বিগুন করে দেয় তোমার অভিজ্ঞতাকে.
তাই যে অবস্থাতেই থাকো না কেন,
চিন্তা কোরো না.

৪৭) একটা সময় অবধি ভদ্রভাবে সবকিছু সহ্য করা যায়,
কিন্তু তার পরে,
সবাইকেই বলতে হয়,
“ব্যাস!আর নয়

৪৮) একটামাত্র সময়েই পেছনে ফিরে তাকাবে,
যখন তোমার এটা জানতে ইচ্ছা করবে যে তুমি আসলে কতটা দূর অবধি পৌঁছেছ!

৪৯) একটি ফুলকে বেশি কাছ থেকে দেখতে গেলে যেমন তার পরাগ আপনার ক্ষতি করতে পারে; তেমনি জীবন নামক ফুলটাকে বেশি নাড়াচাড়া করতে গেলে তা মলিন হয়ে যেতে পারে।

৫০) একটি হাঁস সারাদিন পানিতে থাকেলেও, তার গায়ে পানি লেগে থাকে না, ঝরে পড়ে।
তেমনি মা তাঁর সন্তানকে যতো ই খারাপ কথা বলে ফেলুন না কেনো, তা সন্তানের গায়ে লাগে না।

৫১) একদম নিখুঁত মানুষ খুঁজতে যেও না ,বিধাতা মানুষের ভিতর কিছু কিছু খুত মিশিয়ে দিয়েছে; বেশি নিখুঁত মানুষ খুঁজতে গেলে, তুমি ভালোবাসার কোনো মানুষই পাবে না

৫২) একবারে কঠিন কিছু করা কঠিন কাজ.
তার বদলে তুমি যদি ছোট ছোট জিনিসগুলো ভালোবেসে করো,তাহলেই একদিন অনেক বড় কিছু করার পথে তুমি বাকিদের থেকে অনেকটা এগিয়ে থাকবে

৫৩) এমন একদিন নিশ্চই আসবে যেদিন এমন কেউ তোমার জীবনে আসবে যে তোমার অতীত নিয়ে মাথা ঘামাবে না কারণ সে তোমার সাথে বাকি ভবিষ্যতটা মন দিয়ে কাটাতে চাইবে

৫৪) এমন কাউকে ভালবেস না যার কাছে প্রয়োজন ব্যতীত তোমার আর কোন মূল্য নেই । তাকেই ভালবেস যে প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে তোমার প্রয়োজন অনুভব করবে

বিশ্বাস করার , Bissas Korar SmS 2021

৫৫) কখনো অন্যের সঙ্গে নিজের তুলনা করবে না। যখনই আপনি তুলনা করবেন তখন আসলে আপনি নিজেই নিজেকে ছোট করবেন।
বিল গেটস
প্রতিষ্ঠাতা, মাইক্রোসফট

৫৬) কখনো ই কারো এমন প্রশংসা করবেন না। যে প্রশংসা কারো মনে প্রশ্নের সৃষ্টি করতে পারে।

৫৭) কখনো কখনো আমাদের মধ্যে সেই সবচেয়ে বেশী শক্তিশালী হয় যে সবার সামনে ভীষণ হাসে,
দরজা বন্ধ করে কাঁদতে ভালবাসে
আর নিজের সাথে নিজে যুদ্ধ করে যায় সবার অজান্তে

৫৮) কখনো কখনো কাউকে ভুলে সামনে এগিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়াটা কঠিন.
কিন্তু.
একবার যদি আপনি সামনে এগিয়ে যেতে পারেন.
তবে পেছন ফিরে দেখবেন আপনার জীবনের শ্রেষ্ঠ সিদ্ধান্তটাই আপনি নিয়েছিলেন

৫৯) কখনো কখনো জীবনে এগিয়ে চলতে হলে ঘুরে দাঁড়াতে হয়,
এর মানে এই নয় যে তোমার সময়টা নষ্ট হল,
কারণ,এখন তুমি এখন এমন অনেক কিছু জানো,
যা আগে কখনো জানতে না.

৬০) কখনো তাদের নিয়ে বেশি চিন্তা কোরো না,
যারা তোমার পেছনে তোমার নিন্দা করে,
কারণ তারা তোমার পেছনে আছে কোনো না কোনো কারণে!

৬১) কখনো পড়ে না যাওয়াটা প্রশংসার যোগ্য না,
কিন্তু পড়ে গিয়ে কত তাড়াতাড়ি তুমি নিজেকে সামলে নিচ্ছ, সেটা প্রশংসার যোগ্য…

৬১) কখনোই সেই মানুষটাকে কষ্ট দিও না, যাকে কষ্ট দিলে তার দ্বিগুন কষ্ট তোমার নিজের হয়।

৬২) কাউকে আবেগের ভালোবাসা দিওনা, মনের ভালোবাসা দিও! কারণ আবেগের ভালবাসা ১দিন বিবেকের কাছে হেরে যাবে আর মনের ভালোবাসা চিরদিন থেকে যাবে..

বিশ্বাস করার মেসেজ 2021

৬৩) Kawke কাছে টানার আগে, প্রশ্রয় দেবার আগে বারবার ভাবুন দুজন দুজনার যোগ্য কিনা।
কাছে টেনে অযোগ্যতা কিংবা অক্ষমতার কথা জানিয়ে নিজেও অপমানিত হবেন না কিংবা কাউকে অপমান করার ও অধিকার আপনার নেই।।

৬৪) কাউকে যদি ভালবাস, ভালবেস
চিরদিন। আর যদি না বাসো,
বেসনা কোন দিন। অবুঝ মন
নিয়ে খেলা খেলনা, কোন
নিষ্পাপ
হৃদয়ে ব্যাথা দিয়োনা.

৬৫) কাউকে দুঃখ দিয়ে বেঁচে থাকার চেয়ে দুঃখ নিয়ে বেঁচে থাকা অনেক ভাল। কারণ নিজের কষ্টের জন্য কারো কাছে জবাবদিহি করতে হয় না। কিন্তু অন্যকে কষ্ট দিলে জীবন ভরে তার অভিশাপ মাথায় নিয়ে চলতে হয়।

৬৬) kawke পাওয়ার আশা করে থেকো না,সেই আশা তোমাকেই ধ্বংস করে দিতে পারে
বরং নিজেকে এমনভাবে তৈরী করো যাতে সবাই তোমাকে পাওয়ার আশা করে থাকে

৬৭) কাউকে প্রথম দেখাতেই
প্রেমে পরতে নেই!

৬৮) কাজ করো তো এমন কাজ কর,
যে দুনিয়া তোমার কাছে দৌরে চলে আসে।

৬৯) কারো থেকে প্রতিশোধ নেওয়ার জন্যে জীবন খুব ছোট সময়
তাই কিভাবে কারো ক্ষতি করবে তা ভাবতে সময় নষ্ট কোরো না
যদি সে খারাপ কিছু করে থাকে,তাহলে সে নিশ্চই তার শাস্তি পাবে

৭০) কিছু কিছু মানুষ
ভাগ্যকে নিজের হাতে গড়ে, আবার কারো কারো কাছে
ভাগ্য আপনি এসে ধরা দেয়!
(হুমায়ূন আহমেদ)

বিশ্বাস করার

৭১) কিছু কথা কাউকে বলা যায়না,
শুধু
বুকের মধ্যে বয়ে বেড়াতে হয়

৭২) কিছু বলার আগে- শুনুন। কিছু করে ফেলার আগে- ভাবুন। কিছু ব্যয় করার আগে- কিছু আয় করুন। কারো সমালোচনা করার আগে- অপেক্ষা করুন। প্রার্থনা করার আগে-ক্ষমা করুন। হাল ছেড়ে দেওয়ার আগে- আরেকবার চেষ্টা করুন। মৃত্যুবরণ করার পূর্বে- ঈমান ঠিক করুন।

৭৩) কে আমাদের একশবার রসগোল্লা খাইয়েছিল তা আমরা ভুলে যাই,, কিন্তু কে কবে একবার কান মুচড়ে দিয়েছিল তা আমরা মনে রাখি..!!

৭৪) কে কি বলেছে সেটা ভেবে
কখনো হাল ছেড়ে দিও না,
বরং সেটাকে তোমার
অনুপ্রেরণা হিসেবে ব্যবহার করো!

৭৫) কেউ যখন তোমাকে বারবার আঘাত করতে থাকবে,তখন তাকে শিরিষ কাগজের সাথে তুলনা করে নিও…তাই তোমাকে যতই ঘষুক শেষ অবধি তুমি ধারালো হয়ে উঠবে আরো বেশী আর সে হয়ে পড়বে অকেজো!

৭৬) কেউ যদি আমাকে খারাপ মনে করে,
আমি তাতে কিছু মনে করি না,
কারন একজন মানুষ সবাই কে ভালবাসতে পারে, কিন্তু সবার চোখে ভালো হতে পারে না।

৭৭) কেউ যদি তোমার ভালবাসার মূল্য
না বুঝে তবে নিজেকে নিঃস্ব ভেবো না,
কারন জীবনটা এত তুচ্ছ না।

৭৮) কেউ ভুল করে ফেললে, সবার সামনে তিরস্কার না করে, আলাদাভাবে বলে তাকে শুধরে নেয়ার সুযোগ দিন।

৭৯) কোনো কিছু না পাওয়ার জন্য আপনিই বেশী দায়ী,
কারণ একটাই, আপনার চাওয়ায় ত্রুটি ছিল।

kono কিছু পাওয়ার আনন্দের চেয়ে, না পাওয়ার বেদনা অনেক বেশী যন্ত্রনাদায়ক।

৮০) কোনো চাপ তোমাকে ভাঙতে পারবে না…যতক্ষন তুমি সেই চাপটাকে সেভাবে নিজের উপরে প্রবলভাবে নিচ্ছ!

৮১) কোনো সমস্যাই তোমাকে বলে কয়ে আসবে না.
তাই সব সমস্যাকে হাসিমুখে স্বাগত জানানোই ভালো.
তাতে তার মুখোমুখি হওয়ার সাহস পাওয়া যায়.

৮২) কোনোকিছু আমাদের কাছে সবচেয়ে বেশি মূল্যবান মনে হয় দুটি সময়ে।
সেটি অর্জন করার পূর্বে এবং হারিয়ে ফেলার পর।
এই দুইয়ের মধ্যেবর্তী সময়ে তার মূল্য মাথায় রাখুন।
তাকে হারিয়ে ফেলার সম্ভাবনা কমে যাবে।

বিশ্বাস করার

৮৩) কষ্ট মানুষকে পরিবর্তন করে,
কষ্ট মানুষকে শক্তিশালীও করে।
প্রতিটি কষ্টকর অভিজ্ঞতাই
আমাদের জন্যে নতুন শিক্ষা।

৮৪) কষ্ট মানুষকে পরিবর্তন করে,
কষ্ট মানুষকে শক্তিশালীও করে।
প্রতিটি কষ্টকর অভিজ্ঞতাই
আমাদের জন্যে নতুন শিক্ষা।

৮৫) গাছের উপর বসে থাকা একটা পাখি কখনোই ডাল ভেঙ্গে পড়ার ভয় পায়না
কারণ, তার বিশ্বাসটা তখন ঐ গাছের উপর থাকে না !! তার বিশ্বাস থাকে তখন নিজের ডানার উপর
নিজেকে কখনোই সাধারন ভাববেন না. কারণ, স্রষ্টা কাউকে সাধারনভাবে তৈরী করেননি. তাই নিজের দক্ষতার উপর ভরসা রেখে নিজেকে গড়ে তুলুন. সবসময়

৮৬) চাঁদকে উদ্দেশ্য করে তীর ছুঁড়ো,
যদি তীর চাঁদের গায়ে নাও লাগে তবে নিশ্চিত তা \”তারা\” গুলোর বুক তো ভেদ করবেই।

৮৭) বড় কিছু হবার চেষ্টা করো,
একটা না একটা কিছু হতে পারবেই।

৮৮) চলতে চলতে বাধা সবাই পায়
তুমিও পাবে.
হয়ত পরেও যাবে..
কিন্তু কত তাড়াতাড়ি তুমি আবার উঠে দাঁড়াচ্ছ তার উপর নির্ভর করছে যে তুমি বাকিদের থেকে কতটা আলাদা!

৮৯) ছাত্র জীবনের চেয়ে মধুর জীবন
আর নেই।
কথাটার বাস্তবিক প্রমানিত
হয় যখন ছাত্র
জীবন অতীত হয়ে যায়

৯০) জীবন কাঁটাময় এক যাত্রা
সাহস দিয়ে যাকে করতে হয় জয়.
বানানো রাস্তায় তো সবাই চলতে পারে
রাস্তা বানিয়ে নেয় যে, মানুষ বলে তার পরিচয়.

৯১) জীবন হলো একটা কঠিন পরীক্ষার নাম।
যে পরীক্ষায়
প্রত্যেকের জন্য প্রশ্ন পত্রটা ভিন্ন ভিন্ন। তাই
অন্য কাউকে অন্ধভাবে নকল করতে গেলে
পরীক্ষায় ফেইল করাটা স্বাভাবিক।

Related posts