তড়িৎ রসায়ন বিষয়ক প্রশ্ন ও উত্তর সমাধান

তড়িৎ রসায়ন বিষয়ক প্রশ্ন ও উত্তর সমাধান

প্রশ্ন-১. তড়িৎ রাসায়নিক সারণি কি?
উত্তর :
 তড়িৎ রাসায়নিক সারণি হলাে মৌলের সক্রিয়তার সিরিজ।

প্রশ্ন-২. দর্শক আয়ন কি?
উত্তর :
 যেসব আয়ন রাসায়নিক বিক্রিয়ার সময় জারক ও বিজারকরূপে ক্রিয়া করে না অর্থাৎ জারণ সংখ্যার কোনো পরিবর্তন হয় না তাদেরকে দর্শক আয়ন বলে।

প্রশ্ন-৩. তড়িৎ বিশ্লেষ্য কাকে বলে?
উত্তর :
 যেসব পদার্থ তড়িৎ প্রবাহের ফলে রাসায়নিক বিক্রিয়া করে অন্য পদার্থে পরিণত হয় তাদেরকে তড়িৎ বিশ্লেষ্য বলে।

প্রশ্ন-৪. তড়িৎ অবিশ্লেষ্য কাকে বলে?
উত্তর :
 যে সব যৌগ দ্রবণে বা বিগলিত অবস্থায় তড়িৎ পরিবহন করে না তাদের তড়িৎ অবিশ্লেষ্য বলে। যেমন, গ্লুকোজ দ্রবণে বা বিগলিত অবস্থায় তড়িৎ পরিবহন করে না।

প্রশ্ন-৫. তড়িৎ রাসায়নিক কোষ কি?
উত্তর :
 তড়িৎ রাসায়নিক কোষ হলো এমন একটি যন্ত্র যা রাসায়নিক শক্তিকে বৈদ্যুতিক শক্তিতে পরিণত করে।
একজোড়া তড়িৎদ্বারকে তড়িৎ-বিশ্লেষ্য দ্রবণে আংশিকভাবে নিমজ্জিত করে এদেরকে একটি ধাতব তার দ্বারা সংযুক্ত করলে একটি তড়িৎ রাসায়নিক কোষ গঠিত হয়।

প্রশ্ন-৬. ক্যাথোড কি?
উত্তর :
 ক্যাথোড হলো এক ধরনের তড়িদদ্বার যা ব্যাটারির ঋণাত্মক প্রান্তের সাথে যুক্ত থাকে এবং যার মাধ্যমে ইলেকট্রন ব্যাটারি থেকে দ্রবণে প্রবেশ করে। ক্যাথোডে বিজারণ বিক্রিয়া ঘটে।

প্রশ্ন-৭. ধাতব বা ইলেকট্রনীয় পরিবাহী কাকে বলে?
উত্তর :
 যেসব পদার্থের মধ্য দিয়ে ইলেকট্রন প্রবাহের মাধ্যমে বিদ্যুৎ প্রবাহিত হয় তাদের ধাতব বা ইলেকট্রনীয় পরিবাহী বলে।

প্রশ্ন-৮. ইলেকট্রোড কি?
উত্তর :
 ইলেকট্রোড হলো তড়িৎ রাসায়নিক কোষে ব্যবহৃত দুটি ধাতব পাত যার একটিতে জারণ এবং অপরটিতে বিজারণ ঘটে।

প্রশ্ন-৯. ড্রাইসেল (Drycell) কাকে বলে?
উত্তর :
 আমরা টর্চ লাইট, বিভিন্ন রকম রিমোট কন্ট্রোলার, নানা রকম খেলনা ইত্যাদি ক্ষেত্রে যে বহনযোগ্য ব্যাটারি ব্যবহার করি এগুলোকে ড্রাইসেল বা শুষ্ক কোষ বলে।

তড়িৎ রসায়ন বিষয়ক প্রশ্ন

প্রশ্ন-১০. হাইড্রোজেন ফুয়েল সেল (Hydrogen fuel cell) কাকে বলে?
উত্তর :
 হাইড্রোজেন ও অক্সিজেনকে জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করে যে সেল তৈরি করা হয় তাকে হাইড্রোজেন ফুয়েল সেল বলে।

প্রশ্ন-১১. তড়িৎ প্রলেপন কাকে বলে?
উত্তর :
 তড়িৎ বিশ্লেষণের মাধ্যমে একটি ধাতুর উপর অন্য একটি ধাতুর প্রলেপ দেওয়াকে তড়িৎ প্রলেপন বলে। মরিচা পড়া রোধ করার জন্য,
উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করার জন্য তড়িৎ প্রলেপন করা হয়।

প্রশ্ন-১২. সেকেন্ডারি সেল কাকে বলে?
উত্তর :
 যে সেল একবার ব্যবহার করার পর শক্তি নিঃশেষ হয়ে গেলেও চার্জিং প্রক্রিয়ায় সেলকে আবার কার্যোপযোগী করা যায়, তাকে সেকেন্ডারি সেল বলে।

প্রশ্ন-১৩. তড়িৎ বিশ্লেষ্য পদার্থ কাকে বলে? তড়িৎ বিশ্লেষ্য পদার্থের উদাহরণ
উত্তর :
 যেসব পদার্থ তড়িৎ প্রবাহের ফলে রাসায়নিক বিক্রিয়া করে অন্য পদার্থে পরিণত হয় তাদেরকে তড়িৎ বিশ্লেষ্য পদার্থ বলে। যেমন– খাবার লবণ (NaCl)।

প্রশ্ন-১৪. প্রমাণ তড়িদদ্বার বিভব কি?
উত্তর :
 25°C তাপমাত্রায় 1 atm চাপে 1.0M ঘনমাত্রার তড়িৎ বিশ্লেষ্য দ্রবণে কোনো তড়িদদ্বারকে ডুবালে ঐ তড়িদদ্বারে যে বিভব বৈষম্যের সৃষ্টি হয় তাকে প্রমাণ তড়িদদ্বার বিভব বলে।

প্রশ্ন-১৫. ফুয়েল সেল কি?
উত্তর :
 ফুয়েল সেল হলো এক প্রকার যান্ত্রিক কৌশল, যার সাহায্যে রাসায়নিক শক্তিকে বৈদ্যুতিক শক্তিতে রূপান্তর করা হয়। সাধারণ গ্যালভানিক কোষের মতো একটি ফুয়েল সেলে দুটি ইলেকট্রোড বা তড়িৎদ্বার থাকে।
একটি হলো অ্যানোড বা ঋণাত্মক তড়িৎদ্বার এবং অপরটি হলো ক্যাথোড বা ধনাত্মক তড়িৎদ্বার।

প্রশ্ন-১৬. PEM ফুয়েল সেল কি?
উত্তর :
 PEM-এর পূর্ণরূপ হলো Proton Exchange Membrane। প্রোটনকে মেমব্রেনের মধ্য দিয়ে অতিক্রম করার মাধ্যমে,
অর্থাৎ প্রোটন এক্সচেঞ্জ জ্বালানি কোষ ব্যবহারের মাধ্যমে বিদ্যুৎ উৎপাদনের যান্ত্রিক বিন্যাসকে PEM ফুয়েল সেল বলে।

প্রশ্ন-১৭. লবণ সেতুর কাজ কি কি?
উত্তর :
 লবণ সেতু মূলত দুটি কাজ করে–
১. লবণ সেতু উভয় অর্ধ-কোষের মধ্যে পরোক্ষ সংযোগ স্থাপন করে কোষের বর্তনী পূর্ণ করে।
২. লবণ সেতু উভয় তরলের মধ্যে প্রয়োজন মতো ধনাত্মক ও ঋণাত্মক আয়ন বিনিময়ের ব্যাপন প্রক্রিয়ার মাধ্যমরূপে কাজ করে।

তড়িৎ রসায়ন বিষয়ক প্রশ্ন

প্রশ্ন-১৮. আয়নিক পরিবাহীর তিনটি বৈশিষ্ট্য লিখ।
উত্তর :
 আয়নিক বা তড়িৎবিশ্লেষ্য পরিবাহীর তিনটি বৈশিষ্ট্য :
১. এগুলো গলিত অবস্থায় অথবা উপযুক্ত দ্রাবকে দ্রবীভূত অবস্থায় উৎপন্ন আয়নের সাহায্যে তড়িৎ পরিবহন করে।
২. তড়িৎ প্রবাহকালে অ্যানোড তড়িদদ্বারে জারণ ও ক্যাথোড তড়িদদ্বারে বিজারণ ঘটে।
৩. আয়নের চলাচলের মাধ্যমে তড়িৎ পরিবাহিত হয় বলে এ পদ্ধতিতে তড়িৎ পরিবহনের সাথে সাথে পদার্থের স্থানান্তর ঘটে থাকে।

প্রশ্ন-১৯. বিশুদ্ধ পানি তড়িৎ পরিবহন করে না কেন?
উত্তর :
 বিশুদ্ধ পানি তড়িৎ পরিবহন করে না। কারণ, বিশুদ্ধ পানিতে খুবই সামান্য পরিমাণে H+ ও OH− আয়ন উৎপন্ন হয় যা গ্রহণযোগ্য নয়।
ফলে তড়িৎ পরিবহনের জন্য প্রয়োজনীয় আয়ন বিশুদ্ধ পানিতে পাওয়া যায় না। তাই বিশুদ্ধ পানি তড়িৎ পরিবহনও করে না।

প্রশ্ন-২০. উভমুখী বা পরাবর্ত কোষ কি?
উত্তর :
 যে তড়িৎকোষ হতে অল্প পরিমাণ বিদ্যুৎ উৎপন্ন হতে থাকে এবং ঐ কোষে সংঘটিত বিক্রিয়া সর্বদা সাম্যাবস্থায় থাকে এবং বাহ্যিক তড়িচ্চালক বল প্রয়ােগে বিদ্যুৎ প্রবাহের দিক পরিবর্তন করা যায় এবং
এর ফলে কোষটির বিক্রিয়াও বিপরীত দিকে ঘটতে থাকে, তাকে উভমুখী বা পরাবর্ত কোষ বলে।

প্রশ্ন-২১. রিচার্জেবল ব্যাটারি কি?
উত্তর :
 রিচার্জেবল ব্যাটারি হলাে সেই ব্যাটারি, যাকে বার বার চার্জ দিয়ে ব্যবহারযােগ্য করা হয়। অর্থাৎ এই ব্যাটারির চার্জ শেষ হয়ে গেলে পুনরায় বাহ্যিক বিদ্যুৎ উৎস দ্বারা চার্জ করে ব্যবহার উপযােগী করা যায়।
এই ব্যাটারি থেকে আমরা ডাইরেকট কারেন্ট পাই। উদাহরণ: লেড স্টোরেজ ব্যাটারি।

প্রশ্ন-২২. সেল কাকে বলে?
উত্তর :
 যে যন্ত্রের সাহায্যে রাসায়নিক শক্তি হতে বিদ্যুৎশক্তি উৎপন্ন করে বিদ্যুৎ প্রবাহ বজায় রাখা হয়, তাকে সেল বলে। সেলে যতক্ষণ রাসায়নিক ক্রিয়া চলতে থাকে, ততক্ষণ বিদ্যুৎ প্রবাহ পাওয়া যায়। যেই মাত্র রাসায়নিক ক্রিয়া বন্ধ হয়ে যায়, তখন সাথে সাথে বিদ্যুৎ প্রবাহও বন্ধ হয়ে যায়।

প্রশ্ন-২৩. এক ফ্যারাডে কাকে বলে?
উত্তর :
 তড়িৎ বিশ্লেষণের মাধ্যমে এক গ্রাম তুল্য ভর পরিমাণ যে কোনো বস্তু তড়িতদ্বারে সঞ্চিত বা তড়িৎবিশ্লেষ্যে দ্রবীভূত করতে যে পরিমাণ তড়িৎ শক্তির প্রয়োজন হয়, তাকে এক ফ্যারাডে বলে।

জানারউপায়

প্রশ্ন-২৪. তড়িৎ রাসায়নিক সারি কাকে বলে?
উত্তর :
 যে সারণিতে বিভিন্ন তড়িতদ্বার এবং তড়িতদ্বারে সংঘটিত বিক্রিয়াসহ তড়িতদ্বারের বিভবসমূহকে প্রমাণ জারণ বিভবের ক্রমহ্রাস অনুসারে অথবা প্রমাণ বিজারণ বিভবের ক্রমবৃদ্ধি অনুসারে লিপিবদ্ধ করা হয় তাকে তড়িৎ রাসায়নিক সারি বলে।

প্রশ্ন-২৫. ইলেকট্রোলাইটিক সেল কাকে বলে?
উত্তর :
 যে যন্ত্র সজ্জায় একটি গলিত বা দ্রবীভূত তড়িৎবিশ্লষ্য পদার্থের মধ্যে বাহ্যিক উৎস থেকে তড়িৎ প্রবাহিত করলে পদার্থটি বিশ্লেষিত হয়ে একাধিক নতুন পদার্থে পরিণত হয় তাকে ইলেকট্রোলাইটিক সেল বলে।

প্রশ্ন-২৬. ব্লিস্টার কপার কি?
উত্তর :
 কপারের আকরিক থেকে স্ব-বিজারণ পদ্ধতিতে কপার ধাতু নিষ্কাশন করা হয়। ঐ কপার 98% বিশুদ্ধ হয়। এ অবিশুদ্ধ কপারকে ব্লিস্টার কপার বলা হয়। ব্লিস্টার কপার থেকে তড়িৎ বিশ্লেষণের মাধ্যমে বিশুদ্ধ কপার উৎপাদন করা হয়।

প্রশ্ন-২৭. ফ্যারাডে ধ্রুবক কি?
উত্তর :
 ফ্যারাডের প্রথম সূত্র হতে জানা যায় যে, এক মােল একক ধনাত্মক আয়নকে চার্জ মুক্ত করতে এক মােল ইলেকট্রনের প্রয়ােজন হয়। প্রতি মােল ইলেকট্রন প্রবাহ দ্বারা যে মােট ঋণাত্মক বিদ্যুৎ চার্জ উৎপন্ন হয়, তাকে এক ফ্যারাডে বা ফ্যারাডে ধ্রুবক বলা হয়। একে F দ্বারা চিহ্নিত করা হয় এবং 1F = 96500 কুলম্ব।

প্রশ্ন-২৮. NaCl তড়িৎ বিশ্লেষ্য কেন?
উত্তর :
 NaCl এর দ্রবণে তড়িৎ প্রবাহিত করলে NaCl বিশ্লিষ্ট হয়ে রাসায়নিক বিক্রিয়ার মাধ্যমে অন্য পদার্থে পরিণত হয়। আমরা জানি, যে সকল পদার্থ তড়িৎ প্রবাহের ফলে রাসায়নিক বিক্রিয়া করে অন্য পদার্থে পরিণত হয় তাদেরকে তড়িৎ বিশ্লেষ্য বলে। তাই NaCl তড়িৎ বিশ্লেষ্য।

প্রশ্ন-২৯. তড়িৎ কোষে লবণ সেতুর ভূমিকা
উত্তর :
 তড়িৎ রাসায়নিক কোষের জারণ ও বিজারণ বিক্রিয়ার সময় জারণ অর্ধকোষে ক্যাটায়ন ও বিজারণ অর্ধকোষে অ্যানায়নের আধিক্য ঘটে। ফলে তড়িৎ প্রবাহ ব্যাহত হয় এবং হ্রাস পেতে পেতে এক সময় বন্ধ হয়ে যায়। যে কারণে পূর্ণাঙ্গ তড়িৎ রাসায়নিক কোষ গঠনের ক্ষেত্রে লবণ সেতু ব্যবহার করা হয়। লবণ সেতুতে বর্তমান তড়িৎবিশ্লেষ্য ক্যাটায়ন ও আনায়ন অর্ধকোষের দ্রবণে পরিব্যপ্ত হয়ে উভয় দ্রবণের তড়িৎ নিরপেক্ষতা বজায় রাখে।

তড়িৎ রসায়ন

Related posts