সন্ধি কাকে বলে? সন্ধি কত প্রকার ও কি কি? সন্ধির প্রয়োজনীয়তা

সন্ধি কাকে বলে? কত প্রকার ও কি কি? প্রয়োজনীয়তা

‘সন্ধি’ শব্দের অর্থ ‘মিলন’। পাশাপাশি দুইটি ধ্বনি বা বর্ণের পরস্পর মিলনকে সন্ধি বলে। যেমনঃ বিদ্যা + আলয় = বিদ্যালয়, হিম + আলয় = হিমালয়, নর + অধম = নরাধম ইত্যাদি।

সন্ধির প্রকারভেদ

সন্ধি প্রধানত দুই প্রকার। যথাঃ (ক) স্বরসন্ধি ও (খ) ব্যঞ্জনসন্ধি।

স্বরসন্ধি: স্বরবর্ণের সাথে স্বরবর্ণের মিলনে যে সন্ধি হয়, তাকে স্বরসন্ধি বলে। যেমনঃ মহা+আশয়=মহাশয়, হিম+আলয়=হিমালয়, জল+আশয়=জলাশয় ইত্যাদি।

ব্যঞ্জনসন্ধি: ব্যঞ্জনবর্ণের সাথে ব্যঞ্জনবর্ণ অথবা স্বরবর্ণের মিলনে যে সন্ধি হয়, তাকে ব্যঞ্জনসন্ধি বলে। যেমনঃ পরি+ছেদ=পরিচ্ছেদ, দিক+অন্ত=দিগন্ত, সৎ+ভাব=সদ্ভাব ইত্যাদি।

স্বরসন্ধি ও ব্যঞ্জনসন্ধি ছাড়াও আরো দুই প্রকারের সন্ধি বাংলা ব্যাকরণে প্রচলিত আছে। যথাঃ (ক) বিসর্গ সন্ধি ও (খ) নিপাতনে সিদ্ধ সন্ধি।

বিসর্গ সন্ধি: স্বরবর্ণ বা ব্যঞ্জনবর্ণের সাথে বিসর্গের মিলনে যে সন্ধি হয়, তাকে বিসর্গসন্ধি বলে। যেমনঃ নিঃ+ঠুর=নিষ্ঠুর, নিঃ+চয়=নিশ্চয়, আবিঃ+কার=আবিষ্কার।

নিপাতনে সিদ্ধ সন্ধি: যে সকল সন্ধি ব্যাকরণের নিয়ম অনুসরণ করে না, সেগুলোকে নিপাতনে সিদ্ধ সন্ধি বলে। যেমনঃ বাচঃ+পতি=বাচস্পতি, ভাঃ+কর=ভাস্কর, বন+পতি=বনস্পতি, ষট+দশ=ষোড়শ।

সন্ধির প্রয়োজনীয়তা

বাংলা ব্যাকরণে সন্ধির প্রয়োজনীয়তা অত্যাধিক। যেমনঃ

(ক) সন্ধির সাহায্যে নতুন নতুন শব্দের সৃষ্টি হয়।

(খ) সন্ধি শব্দকে সুন্দর ও শ্রুতিমধুর করে।

(গ) সন্ধি সহজ ও সুন্দর ভাষা তৈরি করে।

(ঘ) সন্ধি ভাষাকে শ্রুতিমধুর করে।

(ঙ) সন্ধি শব্দকে দ্রুত উচ্চারণে সহায়তা করে।

(চ) সন্ধি শব্দ ও বানান শিখতে সাহায্য করে।

পাঠ মূল্যায়নঃ
সন্ধি শব্দের অর্থ কি?; সন্ধি কাকে বলে?; সন্ধি কত প্রকার ও কী কী?; স্বরসন্ধি কাকে বলে?; ব্যঞ্জনসন্ধি কাকে বলে?; বিসর্গসন্ধি কাকে বলে?; নিপাতনে সিদ্ধ সন্ধি কাকে বলে?;

Related posts

Leave a Comment