একটি প্রতিষ্ঠানে হিসাববিজ্ঞানের ভূমিকা সম্পর্কে আলোচনা করুন।

চারটি গুরুত্বপূর্ণ আভ্যন্তরীণ ব্যবস্থাপনা

একটি প্রতিষ্ঠানে হিসাববিজ্ঞানের ভূমিকা সম্পর্কে আলোচনা করুন। (Explain the role of accounting in an organization.)

আধুনিক হিসাববিজ্ঞান ব্যবসায়ের সঙ্গে জড়িত সঠিক অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড তথা লেনদেন লিপিবদ্ধকরণের মাধ্যমে এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।
এছাড়া কারবারের সঙ্গে সম্পৃক্ত তৃতীয় পক্ষের নিকটও হিসাববিজ্ঞানের ভূমিকা রয়েছে বিভিন্ন ক্ষেত্রে হিসাববিজ্ঞান যে ভূমিকা পালন করে নিচে তা আলোচনা করা হলো :

১. সিদ্ধান্ত গ্রহণে ভূমিকা (Role in decision making): হিসাববিজ্ঞানের একটি ভূমিকা হলো সিদ্ধান্ত গ্রহণকারীর ভূমিকা।
সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়া হলো সম্ভাব্য বিকল্পসমূহ থেকে সর্বোত্তম বিকল্পটি বেছে নেওয়া।
যে কোন সিদ্ধান্ত গ্রহণকারীকে অবশ্য শুধুমাত্র একটি “কার্য নির্বাচন করতে হয় না, তাকে সে সঙ্গে “তথ্য নির্বাচনও করতে হয়।
সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী সাধারণত এই “তথ্য সিদ্ধান্ত”-এর কাজটি হিসাববিজ্ঞানীর মত কোন বিশেষজ্ঞকে দিয়ে থাকেন।
তাই ব্যবস্থাপকের মত হিসাববিজ্ঞানীদেরও প্রায়ই সিন্ধান্ত গ্রহণকারীর ভূমিকা পালন করতে হয়।
এক্ষেত্রে তাই “কার্য নির্বাচন” ও “তথ্য নির্বাচন এ দুটি সিদ্ধান্তের জন্য দু’জন সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী রয়েছে এবং প্রত্যেককেই অন্যের সমস্যা সম্পর্কে অবশ্যই জ্ঞাত থাকতে হবে।

“আর পড়ুনঃ” হিসাববিজ্ঞানের নৈতিকতা বলতে কী বুঝায়? JAIBB

২. ব্যবস্থাপনার সহায়ক হিসাবে ভূমিকা (Role as an aid to management): ব্যবস্থাপকদের সহায়তাকারী হিসাবে হিসাববিজ্ঞানের কাজ খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
এ ভূমিকা পালনের জন্য হিসাববিজ্ঞানের কাজ মূলত দুটি—(১) মনোযোগ নির্দেশ এবং (২) সমস্যা সমাধান।
মনোযোগ নির্দেশ হচ্ছে পরিচালনার অদক্ষতা বা উন্নতির সুযোগের উপর আলোকপাত করার উদ্দেশে প্রতিবেদন প্রদান এবং তথ্যের বিশদ ব্যাখ্যাদান।
অন্যদিকে সমস্যা সমাধান হচ্ছে বিকল্প কার্যক্রমের একটি সংক্ষিপ্ত বিশ্লেষণ উপস্থাপন।
হিসাববিজ্ঞানের সহায়তাকারীর ভূমিকা সাধারণত কোন সমস্যার প্রতি ব্যবস্থাপকদের মনোযোগ নির্দেশ করে
এবং উক্ত সমস্যার সমাধান ব্যবস্থাপকদের সহায়তা করার মাধ্যমে সম্পাদিত হয়।

“আর পড়ুনঃ” হিসাববিজ্ঞানের ধারণা, প্রক্রিয়া এবং মান উন্নয়নের সাথে সংশ্লিষ্ট পক্ষসমূহ কী কী?

৩. পেশাজীবী হিসাবে ভূমিকা (Role as a professional): জনস্বার্থে কাজের যোগ্যতা নিয়ে হিসাববিজ্ঞানীদের ভূমিকা হচ্ছে পেশাজীবীর ভূমিকা, যেখানে সে হচ্ছে আস্থাভাজন ব্যক্তি।
এ ভূমিকায় হিসাববিজ্ঞানী বিভিন্ন ধরনের অবস্থানে বিভিন্ন কাজ করে থাকে, যেমন—–নিরীক্ষক, কর পরামর্শদাতা এবং বিভিন্ন পদে সরকারি কর্মজীবী
যথা : সরকারি কর্মচারী, নিয়ামকদের (regulators) পরামর্শদাতা এবং প্রশাসকদের উপদেষ্টা।

একটি প্রতিষ্ঠানে হিসাববিজ্ঞানের ভূমিকা সম্পর্কে আলোচনা করুন।

8. বিশেষজ্ঞ হিসাবে ভূমিকা (Role as an specialist): হিসাববিজ্ঞানের অপর একটি ভূমিকা হলো বিশেষজ্ঞের ভূমিকা।
কারণ এটি কারবার ব্যবস্থাপনার কৌশলসমূহে (tecniques) দক্ষ এবং কোন নির্দিষ্ট শিল্পের সংগঠন ও পরিচালনায় বিশেষভাবে জ্ঞানসম্পন্ন।
এ সামর্থ্য নিয়ে হিসাববিজ্ঞানীরা সরকারি ও বেসরকারি খাতের ব্যবস্থাপনার অংশ হিসাবে কাজ করে থাকেন এবং বিভিন্ন বিষয়ের উপর
(যেমন—হিসাববিজ্ঞান পদ্ধতির নকশাকরণ, প্রতিস্থাপন ও পরিচালনা, স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা প্রণয়ন, গাণিতিক মডেল তৈরি ইত্যাদি) বহিঃস্থ পরামর্শদাতা হিসাবে কাজ করে থাকেন।

৫. পুঁজিবাদী প্রতিষ্ঠানের সেবক হিসাবে ভূমিকা (Role as servants of the capitalistic enterprises): ঐতিহ্যগতভাবে হিসাববিজ্ঞানীরা ব্যবসায়িক জগতের সঙ্গে সংযুক্ত
এবং এ কারণেই তারা পুঁজিবাদী প্রতিষ্ঠানের সেবক হিসাবে চিহ্নিত।
এ দৃষ্টিভঙ্গিতে হিসাববিজ্ঞানীর ভূমিকা হলো প্রতিষ্ঠানের দলিল সংরক্ষণ এবং আর্থিক বিবরণী প্রস্তুতকরণ যার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানের জন্য মূলধন বিনিয়োগের আমন্ত্রণ জানানো হয়,
ঋণযোগ্যতা যাচাই করা যায় এবং আয়কর নির্ধারণের একটি ভিত্তি পাওয়া যায়।

“আর পড়ুনঃ” GAAP বলতে কি বুঝায়? আর্থিক বিবরণী তৈরিতে ইহা কিভাবে প্রভাব বিস্তার করে?

৬. বিনিয়োগকারীগণের জন্য ভূমিকা (Role for investors): একজন বিনিয়োগকারী কোন প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ করবেন কি না তৎসম্পর্কে সিদ্ধান্ত গ্রহণের পূর্বে তিনি বিনিয়োগ সুযোগ বিশ্লেষণ করে থাকেন।
এ বিশ্লেষণের জন্য সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের হিসাব সংক্রান্ত তথ্যের প্রয়োজন হিসাববিজ্ঞান এ বিষয়ে পর্যাপ্ত তথ্য সরবরাহ করে বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগ বিশ্লেষণের ক্ষেত্রে সহায়ক ভূমিকা পালন করে থাকে।

একটি প্রতিষ্ঠানে হিসাববিজ্ঞানের ভূমিকা সম্পর্কে আলোচনা করুন।

৭. মালিকানা স্বার্থ সংরক্ষণে ভূমিকা (Role in trustee of the owner’s interest): যৌথ মূলধনী কারবারের ক্ষেত্রে কারবারের কার্যক্রম পরিচালনায় মালিক বা শেয়ারহোল্ডারদের ভূমিকা খুবই নগণ্য।
কারণ শেয়ারহোল্ডারগণ কোম্পানির ব্যবস্থাপনায় সরাসরি অংশগ্রহণ করেন না। যারা কারবার পরিচালনা করেন তারা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারী। অর্থাৎ মালিকানা থেকে ব্যবস্থাপনা সম্পূর্ণ পৃথক।
তাই মালিকের স্বার্থ সংরক্ষণের জন্য প্রয়োজন একটি সুষ্ঠু এবং স্বচ্ছ হিসাবরক্ষণ পদ্ধতি।
হিসাববিজ্ঞান এ ধরনের একটি আর্থিক পদ্ধতির সাহায্যে কারবারের সঠিক তথ্য মালিকানা কর্তৃপক্ষের নিকট উপস্থাপনের মাধ্যমে মালিকানা স্বার্থ সংরক্ষণে ভূমিকা পালন করে থাকে।

“আর পড়ুনঃ” অস্পর্শনীয় সম্পত্তি (Intangible Assets)

৮. পরিকল্পনা প্রণয়নে ভূমিকা (Role in planning): আধুনিক ব্যবসায় জগতে মালিকানা এবং ব্যবস্থাপনা সম্পূর্ণ পৃথক।
শেয়ারহোল্ডারগণ কারবার পরিচালনার দায়িত্ব ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের উপর ন্যস্ত করেন।
এজন্য তারা কোম্পানি থেকে বেতন ভাতা গ্রহণ করেন। ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব হচ্ছে মালিকপক্ষের স্বার্থ অক্ষুণ্ন রেখে কারবারের কার্যক্রম পরিচালনা করা।
এজন্য পরিকল্পনা প্রণয়ন করা আবশ্যক।
পরিকল্পনা প্রণয়নে হিসাববিজ্ঞানের ভূমিকা অপরিসীম।
অতীত তথ্যাবলির ভিত্তিতে ভবিষ্যতের পরিবর্তনকে বিবেচনা করে প্রণীত পরিকল্পনা স্বার্থকতার রূপ পরিগ্রহ করে।
এভাবে পরিকল্পনা প্রণয়নের ক্ষেত্রে হিসাববিজ্ঞান যথার্থ তথ্য ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষকে সরবরাহ করে ব্যবস্থাপকের পক্ষে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

৯. নিয়ন্ত্রণমূলক ভূমিকা (Role in control): কারবারের কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণে হিসাববিজ্ঞান কার্যকর ভূমিকা পালন করে। বাজেটীয় নিয়ন্ত্রণ,
মান ব্যয় হিসাব ইত্যাদির মাধ্যমে ব্যবসায়ের গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রগুলোতে পর্যাপ্ত নিয়ন্ত্রণমূলক ব্যবস্থা আরোপের ক্ষেত্রে হিসাববিজ্ঞানের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

Related posts